Breaking News
Home / যৌন সমস্যা / জানুন আপনার সঙ্গিনী যে ৪টি জায়গায় আপনার ছোঁয়া চায়, যা আপনাকে বলতে লজ্জা পায় !!
Loading...

জানুন আপনার সঙ্গিনী যে ৪টি জায়গায় আপনার ছোঁয়া চায়, যা আপনাকে বলতে লজ্জা পায় !!

আপনার সঙ্গীকে চরম সুখ দিতে পারে আপনার আলতো হাতের ছোঁয়া৷ অজান্তেই হয়তো অনেকবার দৈহিক মিলনের সময় গার্লফ্রেন্ড বা স্ত্রীর সেই জায়গাগুলোতে স্পর্শ করেছেন৷ মধুর থেকে মধুরতর হয়েছে আপনার রাত৷ আপনার হাতের জাদুতেই এমন আরো অনেক রাত মায়াবী হতে পারে৷ জেনে নিন মিলনের সময় নারী ঠিক কোন কোন অংশে ছোঁয়া চায়৷

ঠোঁট
ঠোঁট একটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর স্থান৷ সঙ্গমের সময় আপনার ভালবাসার মানুষটির ঠোঁট ছুঁলে তিনি আরও উত্তেজিত হয়ে ওঠেন৷ আরও দীর্ঘ করে তোলে মিলন৷ অর্গ্যাজম অনুভব করেন নারীরা৷

ঘাড়
মিলনের সময় স্ত্রী বা গার্লফ্রেন্ডের ঘাড়ে চুমু খান৷ তিনি সেক্সের খিদেয় উন্মাদ হয়ে উঠবেন৷ আপনাকে কামড়ে ধরবেন. বাড়বে মিলনের আনন্দ৷

স্তন
মিলনে একটা বড় ভূমিকা রয়েছে স্তনের৷ নারীরা মুখে না বলতে পারলেও স্তনে স্বামী বা বয়ফ্রেন্ডের হাতের ছোঁয়া পেতে উৎসুক হয়ে থাকেন৷ আর সঠিক মুহূর্তে সেই চাহিদা পূরণ হলেই কেল্লাফতে৷ আপনার প্রত্যাশাকে ছাপিয়ে যাবে রতিসুখ৷

উরু
উরুতে স্পর্শ করুন৷ তারপর একবার সঙ্গীর মুখের দিকে তাকান৷ তফাৎটা চোখে পড়তে বাধ্য৷ একবার স্পর্শ করলে সঙ্গী আরও দু-তিনবার আপনার ছোঁয়া চাইবেন৷ হাঁটুর ওপর থেকে ধীরে ধীরে আলতো হাতে ওপরের দিকে স্পর্শ করুন৷ যৌনমিলনের ইচ্ছা জাগিয়ে তোলার এর চেয়ে সহজ উপায় আর কীই বা হতে পারে৷

মিলনের আগে মহিলারা কী করেন, যা স্বীকার করতে চান না? জানলে চমকে উঠবেন!
……………………………………………….

মিলনের মতো স্বতঃস্ফূর্ত একটি প্রক্রিয়ার আগে অধিকাংশ মহিলাই বেশ কয়েকটি কাজ করে থাকেন, অথচ প্রকাশ্যে স্বীকার করেন না।

এর মধ্যে কতগুলি কাজ রয়েছে, সেগুলি তাঁরা অভ্যাসবশত করেন। আবার কতগুলি কাজ তাঁরা স্বাস্থ্য রক্ষার্থে করে থাকেন। কী সেই কাজগুলি, আজ জেনে নিন এই প্রতিবেদনে।

ব্রা ও পেন্টি

মহিলাদের মধ্যে অনেকেই স্বীকার করেছেন যে, মিলনের পরিকল্পনা থাকলে তাঁরা পুরুষসঙ্গীকে উত্তেজিত করতে ব্রা বা পেন্টি খানিক দেখানোর চেষ্টা করেন। সরাসরি মুখে না বললেও ব্রা বা পেন্টি দেখিয়ে পুরুষসঙ্গীকে নিজেদের দিকে টেনে আনার চেষ্টায় কোনও কসুর করেন না।

মহিলারা আরও বলছেন, ‘স্পেশ্যাল দিনে চেষ্টা করি সেই সব ব্রা বা পেন্টি পরতে, যেগুলি অন্যদিনের তুলনায় একটি বেশি খোলা মেলা।’

পরিচ্ছন্নতা

অধিকাংশ মহিলাই যৌন মিলনের আগে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে থাকতে পছন্দ করেন। ঘনিষ্ঠ হওয়ার আগে স্নান করা, গোপনাঙ্গ পরিষ্কার করা- এসবই মহিলারা নিয়মমাফিক করে থাকেন। সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারী এক মহিলা বলছেন, ‘সেক্সের আগে সাফসুতরো থাকাটা শুধুমাত্র পছন্দের জন্য নয়, এটা শরীরের জন্যও ভাল।

’ওয়াক্সিং

নিজেকে আকর্ষক দেখতে লাগুক, এমনটা কোন মহিলা চান না শুনি? তাই ঘনিষ্ঠ হওয়ার আগে নিজেদের হাত, পা-সহ অন্যান্য অঙ্গের অতিরিক্ত রোম পরিষ্কার করে নেন মহিলারা। একজন বলছেন, ‘আমার হাত বা পায়ে যখন আমার সঙ্গী হাত দেবে, আমি চাই না সেখানে কোনও রোম থাকুক।’

সাফসুতরো শয্যা

অনেক মহিলাই মনে করেন, পূর্ণাঙ্গ মিলনের জন্য শয্যা ও বেডরুম ঝকঝকে, তকতকে থাকা জরুরি। ঘনিষ্ঠ মুহূর্তে নাকে জঞ্জালের দুর্গন্ধ এসে লাগুক বা সিলিংয়ে ময়লা থাকুক-এমনটা চান না মহিলারা। তাই মিলনের আগে নিজের শয্যা ও অানুষঙ্গিক জিনিসপত্র গুছিয়ে রাখতেই তাঁরা পছন্দ করেন।

মিউজিক

মহিলাদের মধ্যে একটা বড় অংশই মনে করেন যে উত্তেজনার শিখরে পৌঁছতে ভাল মিউজিক সবসময় সাহায্য করে। তাই পুরুষসঙ্গীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়ার সময় ঘরে হালকা ভলিউমে মিষ্টি কোনও গান বা যন্ত্রসঙ্গীত বাজুক- এমনটাই চান মহিলারা।

পারফিউম

মহিলারা বলছেন, ‘আমি চাই যেন আমার পার্টনার আমার পারফিউমের গন্ধে ডুবে যাক। তাই আমি সেক্সের আগে সবসময় দামি ফ্রেঞ্চ পারফিউম ব্যবহার করি।’

সুরক্ষা (কনডম)

আর সবশেষে কিন্তু সবচেয়ে জরুরি যে জিনিসটি মহিলারা কখনই ভোলেন না, সেটা হল মিলনের আগে সুরক্ষার কথা। অধিকাংশ মহিলাই এটা মেনে নিয়েছেন, যে পার্টনার না চাইলেও তাঁরা মিলনের সময় সবরকম সুরক্ষাবিধি মেনে চলতেই পছন্দ করেন।

আরো পড়ুন…

শিক্ষিকার যৌন চাহিদার শিকার ষষ্ঠ ছাত্র সহ ৫ ছাত্র!

আমেরিকার পেনসিলভেনিয়া হাইস্কুলের শিক্ষিকা তিনি। ছাত্রদের শিক্ষা দেওয়ায় তার দায়িত্ব। অথচ নিজের শারীরিক চাহিদা পূরণ করতে রেহাই দিলেন না নিজের ছাত্রদেরও।

জোর করে ৫ ছাত্রের সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হত ৪৯ বছরের শিক্ষিকা মিশেল মেলিঙ্গার।

পাঁচ জনের সঙ্গে এক বছর ধরে এভাবে যৌন সম্পর্ক চালিয়ে যাচ্ছিলেন ওই শিক্ষিকা। বিপত্তি বাঁধে ষষ্ঠ ছাত্রের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের সময়। শিক্ষিকার এই নির্যাতন মুখ বুজে মেনে নেয়নি ছাত্রটি। সব ঘটনা বিস্তারিত জানিয়ে দেয় বাবা-মাকে।

Loading...